Herbal Trees – Cure of native plants and fruits

ব্রাহ্মী শাক এর উপকারিতা – Benefits of Brahmi Shaak in Bengali

ব্রাহ্মী শাক এর উপকারিতা

ব্রেনের কর্মক্ষমতা বাড়ায়: বেশ কয়েকটি অভ্যাস মস্তিষ্কের কার্যক্ষমতা কমিয়ে দেয়, যা দৈনন্দিন জীবনে মারাত্মক প্রভাব ফেলে যার ফলে স্মৃতি শক্তি কমতে থাকে। এই স্মৃতিশক্তি কমে যাওয়াকে বিকৃতি বলা হয়। আবার, বিকৃতি হলো শিক্ষা এবং স্মৃতির বিয়োগফল, কোন নির্দিষ্ট তথ্য স্মরণ করার অক্ষমতাকেই বিকৃতি বলে তবে কি সেই অভ্যাস, যা মস্তিষ্কের কার্যক্ষমতা কমিয়ে দেয়।

Benefits of Brahmi Shaak in Bengali নিম্নে আলোচনা করা হল-

অপর্যাপ্ত ঘুম

বিশেষজ্ঞরা বলেছেন যে, একজন স্বাভাবিক মানুষের দৈনিক ৭-৮ ঘণ্টা ঘুম দরকার। মাত্র ১ ঘন্টা কম ঘুমালে বৃদ্ধির মাত্রা ৪ ডিগ্রিতে নেমে আসতে পারে। তাছাড়াও একটি গবেষণা বলছে, প্রতিদিন কফি, চা, কোমল পানীয় পান করলে মস্তিষ্কের কার্যক্ষমতা ধীরে ধীরে কমে যায়।

স্ট্যানফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয়ের গবেষণায় বলা হয়েছে যে, একসঙ্গে একাধিক কাজ করলেও মস্তিষ্কের কর্মক্ষমতা হ্রাস পায়। মাত্রাতিরিক্ত মেদ বুদ্ধির মাত্রা কমিয়ে দেয়। ধূমপানের কারণে ব্রেনের শক্তি কমতে থাকে। তাছাড়াও সঠিক পুষ্টিগুণ সমৃদ্ধ খাবারের অভাবে কমে যেতে পারে স্মৃতিশক্তি। এছাড়া অতিরিক্ত দুশ্চিন্তাও ব্রেনের স্বাভাবিক কার্যক্ষমতা নষ্ট করে দিতে পারে।

সুতরাং ব্রেইনকে সঠিকভাবে সুস্থ রাখতে হলে এবং ব্রেনের স্মৃতিশক্তি ও মনঃসংযোগ বৃদ্ধি করতে হলে বিশেষ প্রয়োজনীয় ব্রাহ্মী শাক খেতে হবে। দামে কম কিন্তু কাজে ভীষণ দামী এই ব্রাহ্মী শাক যা খুবই স্মৃতি শক্তির জন্য কার্যকরী ও উপকারী।

প্রাচীন আয়ুর্বেদিক রীতি এই অনন্য গুণসম্পন্ন ভেষজকে স্বীকৃতি দিয়েছে।যার জন্য ব্রাহ্মী শাকে স্বাস্থ্য সংক্রান্ত কিছু আকর্ষণীয় উপকারিতা সম্পর্কে জানা যায়।

জেনে নেওয়া যাক ব্রাহ্মী শাকের উপকারিতাগুলি-

রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ায়

ব্রাহ্মী অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট পুষ্টি উপাদানের মনোনয়ন করে।

• ব্যাক্টেরিয়ার সংক্রমনের বিরুদ্ধে

•প্যাথোজেনের বিরুদ্ধে

• ভাইরাসের বিরুদ্ধে

অ্যালজাইমারস রোগের লক্ষণ কমায়

ব্রাহ্মীতে ব্যাকোসাইড নামক বায়োকেমিক্যাল থাকে। এটা মস্তিষ্কের কোষদের নিয়ন্ত্রণ করে নতুনভাবে মস্তিষ্কের টিস্যু তৈরি করে।

উদ্বেগ ও দুশ্চিন্তা কমায়

ব্রাহ্মী কর্টিসোলের মাত্রা কমায়। চাপের অনুভূতির সাথে জড়িত হরমোনকে নিয়ন্ত্রণ করে উদ্বেগ কমায়।

স্মৃতিশক্তি বাড়ায় 

ব্রাহ্মী মেধার উন্নতি করে ও মনঃসংযোগ করতে সাহায্য করে। ব্রাহ্মী চেতনা- বুদ্ধি বাড়ায়।

চুল পড়া প্রতিরোধ করে

ব্রাহ্মীর মধ্যে অ্যালকালয়েড থাকে। এটা প্রোটিন কাইনেসের কার্যকারিতা উন্নতি ঘটায়।

মাথার ত্বকে ব্রাহ্মী অয়েল মালিশ করলে

চুল পড়া বন্ধ হয়

চুলের বৃদ্ধি হয়

মাথার ত্বকের অস্বস্তির উপশম হয়

খুশকি কমে যায়।

শ্বসনতন্ত্রের উপকারিতা

আয়ুর্বেদ অনুসারে নিম্নলিখিত চিকিৎসায় ব্রাহ্মী শাকের ব্যবহার করা হয়—

ব্রংকাইটিস

সাইনাস

বুকে ঠান্ডা লাগা

এটা গলার ভেতরের জ্বালার ভাব কমায়।

এটা শ্বাসনালীর ভেতর থেকে অতিরিক্ত শ্লেষ্মা ও কফ বের করে দেয়।

গাটের ব্যথা কমায়

পিঠে ব্যথা কমায়

পেশীর ব্যথা কমায়

মাথা যন্ত্রণা কমায়

শরীরের যন্ত্রণা কমানোর ক্ষেত্রে এই তেল কার্যকরী।

Read more: ৭টি কার্যকরী খাদ্য টেস্টোস্টেরন হরমোন বাড়াতে সাহায্য করবে

ব্রাহ্মী শাক এর গুনাগুন

সর্বত্র গুণে সমৃদ্ধ এবং খুবই কার্যকরী এবং উপকারী ব্রাহ্মী শাকের গুনাগুন গুলি নিম্নে আলোচনা করা হল:

(১) ফুসফুসের কর্মক্ষমতার উন্নতি ঘটে: নিয়মিত কয়েকটি করে ব্রাহ্মী শাকের পাতা মুখে নিয়ে চিবোতে হবে। তাহলে, ধীরে ধীরে ফুসফুসের ক্ষমতা বাড়তে শুরু করে অর্থাৎ এমন তথ্যই পাওয়া গেছে বেশ কিছু গবেষণায়।আর এই প্রাকৃতিক উপাদানটি দারুণভাবে কাজে আসে ব্রংকাইটিস, বুকে কফ জমা এবং সাইনাসের মত সমস্যার সমাধানে।

(২) দেহের অন্দরে প্রদাহ কমায়: বেশ কিছু গবেষণায় দেখা যায় যে, শরীরের কোনো জায়গায় কেটে যাওয়ার পর সেই ক্ষত স্থানে ব্রাহ্মীশাক বেটে লাগালে জ্বালা-যন্ত্রণা একেবারে কমে যায়। এছাড়াও শরীরের অন্দরে তৈরি হওয়া ইনফ্লামেশনও কমে যেতে শুরু করে এবং আর্থারাইটিসের মতো রোগে আক্রান্ত হওয়ার আশঙ্কাও কমে নিয়মিত এই শাক খাওয়ার ফলে।

(৩) রোগপ্রতিরোধ ক্ষমতার উন্নতি ঘটে: এই শাকটি খাওয়ার ফলে শরীরে অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট এবং ভিটামিন-‘সি’ এর মাত্রা বৃদ্ধি পেতে শুরু করে যা রোগ প্রতিরোধ ব্যবস্থাকে জোরদার করে তুলতে সাহায্য করে। তাই নিয়মিত এই শাকটি খেতে হবে। তাহলে কোনরকম আক্রমণ ধারে কাছে আসতে পারবে না।

(৪) বৃদ্ধি এবং স্মৃতিশক্তি বৃদ্ধি পায়: ব্রাহ্মী শাকে উপস্থিত বেশ কিছু কার্যকরী উপাদান মস্তিষ্কের হিপোক্যাম্পাস অংশটির ক্ষমতা এতটা বেড়ে যায় যে, বুদ্ধি এবং স্মৃতি চোখে পড়ার মতো বাড়তে শুরু করে। এমনটাই পাওয়া গেছে বেশ কিছু গবেষণায়। এই শাকটি বিশেষ ভূমিকা নেয় মনসংযোগ বাড়াতে।

(৫) ক্যান্সার রোগে আক্রান্ত হওয়ার আশঙ্কা কমায়: ব্রাহ্মী শাকে রয়েছে প্রচুর মাত্রায় অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট যা শরীর থেকে নানারকম ক্ষতিকর উপাদান বার করে দিয়ে একদিকে যেমন ক্যান্সার সেলের জন্ম আটকায় তেমনি ভাবে শরীরের কর্মক্ষমতা বাড়াতেও বিশেষ ভূমিকা নেয়। তাই সুস্থ থাকতে হলে নিয়মিত ব্রাহ্মী শাক খেতে হবে।

(৬) রক্তচাপ স্বাভাবিক রাখে: ব্রাহ্মীশাক রক্তচাপকে স্বাভাবিক রাখতে বিশেষ ভাবে সাহায্য করে এবং ব্লাড প্রেসার হঠাৎ বেড়ে যাওয়ার কারণে যাতে কোনো ধরনের ক্ষতি না হয় সেদিকেও খেয়াল রাখে। তাই রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণ রাখতে নিয়মিত ব্রাহ্মী শাক খেতে হবে।

(৭) অ্যালজাইমারস রোগকে দূরে রাখে: ব্রাহ্মী শাকে রয়েছে ব্যাকসাইড নামক এক ধরনের বায়োকেমিক্যাল যা ব্রেন টিস্যুর ক্ষত সরিয়ে তাদের ক্ষমতা বৃদ্ধিতে বিশেষ ভূমিকা পালন করে। তাই নিয়মিত ব্রাহ্মী শাক খেলে বয়সের সঙ্গে তাল মিলিয়ে মস্তিস্কের স্মৃতিশক্তি কমে যাওয়ার আশঙ্কা কমে যায় এবং কগনিটিভ ফাংশন কমে যাওয়ার সম্ভাবনাও কমে।

(৮) স্ট্রেস এবং অ্যানজাইটির মাত্রা কমায়: মস্তিষ্কের অন্দরে স্ট্রেস এবং অ্যানজাইটির জন্ম দেওয়া করিসন হরমোনের ক্ষরণ কমতে শুরু করে, নিয়মিত ব্রাহ্মী শাক খেলে। ফলে মানসিক চাপ কমে যায়। সেইসঙ্গে মনের হারিয়ে যাওয়া আনন্দ ফিরে আসে।তাই শরীর সুস্থ রাখতে হলে নিয়মিত ব্রাহ্মীশাক অবশ্যই খেতে হবে।অর্থাৎ ব্রাহ্মী শাক খাওয়া খুবই কার্যকরী এবং উপকারী এবং এটা খুবই সহজলভ্য।

সুতরাং এই ব্রাহ্মীশাক মাথা ঠান্ডা করে এবং স্মৃতিশক্তি মারাত্মক বৃদ্ধি করে। তাই ব্রাহ্মী শাক খাওয়াটা খুবই প্রয়োজন শরীরের পক্ষে।সেই জন্য শরীর সুস্থ রাখতে হলে অবশ্যই ব্রাহ্মী শাক নিয়মিত খেতে হবে।

Liver Tonic

Disclaimer: উপরোক্ত রোগের বিষয় যে সমস্ত ভেষজ উদ্ভিদের দ্বারা রোগ নিরাময়ের বিষয় বলা হল সেগুলি ব্যবহারের পূর্বে অবশ্যই কোন  বা আয়ুর্বেদিক রোগ বিশেষজ্ঞ ডাক্তারের সঙ্গে পরামর্শ করবেন। রোগ নিরাময় পদ্ধতি গুলি যদি আপনি ব্যবহার করতে চান সেটি সম্পূর্ণ আপনার ব্যক্তিগত ব্যাপার, এর জন্য herbaltrees.in ওয়েবসাইট কোন ভাবেই দায়ী থাকবে না।

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *